ফটিকছড়িতে বরই চাষ করে যুবকের ভাগ্য বদল  

শেয়ার

ফটিকছড়িতে শিক্ষিত যুবক তৌহিদুল বরই চাষ করে আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী হয়েছেন। পাশাপাশি তার বাগানে কাজ তরে কর্মসস্থান সৃষ্টি হয়েছে অন্তত দশ জন লোকের। পতিত জমিতে বরই চাষ এলাকায় বেশ সাড়া জাগিয়েছ।

প্রতিদিন নানা বয়সী মানুষ ছুটে আসছেন বাগান দেখতে। অনেকেই বাগান দেখে বরই চাষে আগ্রহী হচ্ছেন। বলতে গেলে তৌহিদুলের হাত ধরেই উপজেলায় উন্নত জাতের বরই চাষে বাজিমাৎ।

জানাগেছে, উপজেলার দাঁতমারা ইউনিয়নের ছোট কাঞ্চনা গ্রামের মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান তৌহিদুল আলম। লেখাপড়া উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত। শিক্ষার পাঠ শেষ না করে এনজিও সংস্থায় চাকুরী নিলেও স্বপ্ন দেখতেন নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে কিছু একটা করার।

এক সময় চাকরী ছেড়ে দিয়ে মনস্থীর করেন বাড়ির পাশে নিজেদের পতিত জমিতে চাষাবাদ করার। যেই চিন্তা সেই কাজ। শুরু করেন বরই চাষ। প্রথম দিকে ছোট্ট পরিসরে হলেও এখন তার বাগানে জমির পরিমান আশি শতকের কাছাকাছি।

প্রথম দিকে, আশানুরুপ ফলন না হলেও দুই বছরের মাথায় এসে লাভের মূখ দেখতে শুরু করেন এ যুবক।

প্রথম পর্যায়ে স্থানীয় নার্সারী থেকে কলম চারা সংগ্রহের মধ্যে দিয়ে শুরু করা হলেও বর্তমানে সুন্দরী, কাশ্মীরী, ভারত সুন্দরী, আপেল কুল, নারিকেলসহ অন্তত ১০ হাজার উন্নত জাতের বরই গাছ রয়েছে বাগানে।

সম্প্রতি সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় প্রতিটি গাছে থোকায় থোকায় ঝুলছে কাচা – পাকা বরই। এমন ভাবে ফলন হয়েছে বরইয়ের ভারে গাছগুলো যেন মাটিতে লুটিয়ে পড়ছে।

পাশাপাশি বরই গাছের ফাঁকে ফাঁকে সাথী ফসল হিসেবে বারো হাইব্রীড পেয়ারা ও থাই আখের আবাদ করা হয়েছে।

জানা যায় , জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত একটি বরই গাছ থেকে কমপক্ষে ২০ -৩০ কেজি ফলন পাওয়া যায়। প্রকার ভেদে প্রতি কেজি বরই ৭০/ ৮০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা হয়।

সবকিছু মিলিয়ে আশি শতক জমিতে আবাদ করতে খরচ পড়েছে ৮ লক্ষাধিক টাকা। এ পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে ৯ লক্ষ টাকার মতো। গাছে যে ফলন অবশিষ্ট রয়েছে, সেগুলো বিক্রি করে তিন থেকে চার লক্ষ টাকা আসতে পারে।

প্রতিদিন আশেপাশের এলাকা ছাড়াও দূর দুরান্ত থেকে বেপারীরা এসে বরই কিনে নিয়ে যায়। এসব বরই খেতে সুস্বাদু হওয়ায় এর চাহিদাও বেশী। দামও তুলনামূলক কম।

বরই কিনতে আসা বেশ কয়েকজন বেপারীর সাথে কথা হলে তারা বলেন এখানে উৎপাদিত বরই অধিক মিষ্টি। যার ফলে বাজারে চাহিদা বেশী থাকে। দামও ভাল পাওয়া যায়।

জানতে চাইলে সফল বরই চাষী তৌহিদুল আলম বলেন এমন একটা সময় ছিল কৃষি মানে নিম্ম শ্রেণীর পেশা ভাবা হতো। বর্তমানে শিক্ষিত যুবকরা কৃষিতে এসে সেই ধ্যান ধারনায় পরিবর্তন এনেছেন।

তিনি আরো বলেন বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসরণ করে চাষাবাদ করলে সফল হতে সময় লাগে না। তবে, এক্ষেত্রে ইচ্ছা শক্তি ও পরিশ্রমের বিকল্প নেই। আগ্রহী তরুনদের বরই চাষ বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দেন বলে জানান সফল বরই চাষী তৌহিদুল।

জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান বলেন ফটিকছড়ির উত্তর অঞ্চল ঢালু ও উ্বর্বর হওয়ায় এখানকার মাটি বরই চাষের জন্য বেশ উপযোগী। এখানে ব্যক্তি উদ্যোগে উচ্চ ফলনশীল বরই চাষ করে অনেকে সফল হয়েছেন। এক্ষেত্রে তৌহিদুলের বাগানটি মডেল হিসেবে ধরে নেয়া যায়। আগামীতে বরই চাষে আগ্রহীদের পরামর্শ ও সরকারী সহযোগিতার আশ্বাস দেন এ কর্মকর্তা।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ