সাতকানিয়া ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকো দিয়ে দুই উপজেলার মানুষের পারাপার

শেয়ার

সাতকানিয়া উপজেলার কাঞ্চনা ইউনিয়নের দক্ষিণ কাঞ্চনা বুড়াইছড়ি খালের উপর হাজারিখীল এলাকায় সেতুর অভাবে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন স্থানীয়রাসহ হাজারো মানুষ।ঝুঁকিপূর্ণ বাঁশের সাঁকো দিয়ে প্রতিনিয়ত পার হতে হয় এ খালটি। 

দেশ স্বাধীনের আগে থেকে এলাকাবাসী ওই স্থানে একটি সেতু নির্মাণের জন্য দাবী জানিয়ে আসলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টরা সেতু নির্মাণে তৎপর হতে দেখা যায়নি বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

আরো পড়ুন: উদ্বোধন হলো কালারপোল সেতু

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পুরনো রামপুর-ডিসি সড়কের মাঝখান দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে বুড়াইছড়ি খালটি। দক্ষিণ কাঞ্চনা হাজারিখীল এলাকায় অবস্থিত কাঞ্চনা ইউনিয়নের ৬ ও ৮নং ওয়ার্ডের আড়াই’শ পরিবারের সহস্রাধিক লোক প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করে এ সাঁকোটি দিয়ে। এর বাইরেও কাঞ্চনা আনোয়ারুল উলুম ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা, দারুল এহসান দাখিল মাদ্রাসা, এন আই চৌধুরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয়, শাহ রশিদিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা, কাঞ্চনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাঞ্চনা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কাঞ্চনা এ.কে.বি.সি ঘোষ ইনস্টিটিউট এর হাজারও শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে ওই সাঁকোর উপর দিয়ে যাতায়াত করতে হয় প্রতিনিয়ত। চরম ঝুঁকি জেনেও নিরূপায় হয়ে চলাচল করছেন লোকজন।

সরেজমিনে দেখা যায়, স্কুল-মাদ্রাসার শিক্ষার্থী, সাধারণ জনগণ ও কৃষিপণ্য নিয়ে যাতায়াত করছেন। সাঁকোটি বর্তমানে এমনই নড়বড়ে হয়েছে চলাচল করতে গিয়ে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরণের দুর্ঘটনা।

সেখানে কথা হয়, স্থানীয় বদিউল আলম, নুরুল আলম ও ছগির আহমদসহ একাধিক ব্যক্তির সাথে। তাঁরা চট্টগ্রাম নিউজের প্রতিবেদককে বলেন, পাকিস্তান আমলে ওই স্থানে ব্রিক পিলারের উপর লোহার পাটাতন দিয়ে একটি সেতু নির্মিত হয়। বন্যার পানির ঢলে বেশিদিন স্থায়ী হয়নি সেতুটি। এরপর থেকে এলাকাবাসীর অর্থায়নে খাল পারাপারের জন্য বাঁশ দিয়ে তৈরি করা হয় একটি সাঁকো। পানির তোড়ে প্রায় সময় সাঁকোটি ভেঙ্গে গেলে পুনরায় মেরামত করে চলাচল উপযোগী করে তোলে এলাকাবাসী। এভাবেই চলছে দিন।

তাঁরা আরো বলেন, হাজারিখীলের এ সাঁকোটি দিয়ে কাঞ্চনা মনুফকিরহাট, মাদার্শার দেওদীঘি, মক্কাবাড়ি হয়ে রামপুর-ডিসি সড়কটি পার্শ্ববর্তী লোহাগাড়া উপজেলার চুনতিতে গিয়ে মিলিত হয়েছে। বর্তমানে এ সড়কটি রামপুর-ডিসি সড়ক হিসেবে পরিচিত থাকলেও খতিয়ানে জয় মঙ্গল সড়ক হিসেবে পরিচিত ছিল। এ সাঁকোটির স্থানে একটি সেতু নির্মিত হলে যোগাযাগ ব্যবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি উপকৃত হতো সাতকানিয়া ও লোহাগাড়ার লাখ লাখ কৃষক, দুর্ভোগ কমতো শিক্ষার্থীসহ ওই সড়কে চলাচলরত জনসাধারণের।

এ ব্যাপারে কাঞ্চনা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রমজান আলী বলেন, একটি সেতুর অভাবে প্রতিদিন হাজারও মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ সেতুটি নির্মিত হলে সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া দুই উপজেলাবাসীর মধ্যে কৃষিসহ অন্যান্য ক্ষেত্রেও সেতুবন্ধন তৈরি হতো। সেতুটি নির্মাণের জন্য স্থানীয় সাংসদসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে অনেকবার ধরণা দিয়েও কোন ফল পায়নি।

এ ব্যাপারে সাতকানিয়া উপজেলা প্রকৌশলী পারভেজ সারওয়ার হোসেন বলেন, হাজারিখীল এলাকার বুড়াইছড়ি খালের উপর সেতু নির্মাণের জন্য চট্টগ্রাম অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের ডিপিটি’তে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ